Subscribe Us

header ads

কুরআন মাজীদ বা তাঁর পৃষ্ঠা ছিড়ে গেলে করণীয়। কুরআন মাজীদের নষ্ট হয়ে যাওয়া পৃষ্ঠাগুলো জ্বালিয়ে দেওয়া।

কুরআন মাজীদ বা তাঁর পৃষ্ঠা ছিড়ে গেলে অথবা নষ্ট হয়ে গেলে করণীয়।

রো পড়ুন


প্রশ্ন: অনেক সময় কুরআন মাজীদের কিছু পৃষ্ঠা নষ্ট হয়ে যায় কিন্তু পুরো কুরআন মাজীদ ঠিক থাকে এই কুরআনের  ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত কি নেব? নষ্ট হয়ে যাওয়া এমন পৃষ্ঠা যা তিলাওয়াত করা যায় না তা আমরা কি করব? এবং পুরো কুরআন মাজীদ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তা তিলাওয়াত করা সম্ভব না হলে উক্ত কুরআন মাজীকে জ্বালিয়ে দেওয়া উত্তম না মাটিতে দাফন করা উত্তম?

সমাধান: যেই কুরআন মাজীদের ০১-০২ পৃষ্ঠা নষ্ট হয়ে গিয়েছে এগুলোকে কুরআন মাজীদ থেকে বের করে ভালো পৃষ্ঠাগুলো ওখানে যুক্ত করে দেওয়া উচিত কুরআন মাজীদের নষ্ট হয়ে যাওয়া পৃষ্ঠাগুলোকে একত্রিত করে পবিত্র কাপড়ের মধ্যে জড়িয়ে তাকে মাটির মধ্যে অনেক নিচে দাফন করে দিবে যাতে করে দ্বিতীয়বার তা উপরে উঠার সম্ভবনা না থাকে। যদি জমিন এত নরম হয় যে ভবিষ্যতে পৃষ্ঠাগুলো উপরে চলে আসার সম্ভাবনা রয়েছে বা জমিনে দাফন করার মত তেমন জায়গা না পাওয়া যায় তাহলে উত্তম ব্যবস্থা হলো, ভাল পবিত্র কোন জিনিসের মধ্যে রেখে সাবধানতার সহিত পৃষ্ঠাওগুলোকে অথবা কুরআন মাজীদ কে জ্বালিয়ে দিবে অতঃপর তাঁর ছাইগুলোকে মাটির মধ্যে দাফন করে দেবে অথবা প্রবাহিত নদী ও সাগরের মধ্যে ভেসে দেবে

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

وَقَالَ عُثْمَانُ لِلرَّهْطِ الْقُرَشِيِّينَ الثَّلَاثَةِ إِذَا اخْتَلَفْتُمْ أَنْتُمْ وَزَيْدُ بْنُ ثَابِتٍ فِي شَيْءٍ مِنْ الْقُرْآنِ فَاكْتُبُوهُ بِلِسَانِ قُرَيْشٍ فَإِنَّمَا نَزَلَ بِلِسَانِهِمْ فَفَعَلُوا حَتَّى إِذَا نَسَخُوا الصُّحُفَ فِي الْمَصَاحِفِ رَدَّ عُثْمَانُ الصُّحُفَ إِلَى حَفْصَةَ وَأَرْسَلَ إِلَى كُلِّ أُفُقٍ بِمُصْحَفٍ مِمَّا نَسَخُوا وَأَمَرَ بِمَا سِوَاهُ مِنْ الْقُرْآنِ فِي كُلِّ صَحِيفَةٍ أَوْ مُصْحَفٍ أَنْ يُحْرَقَ (صحيح البخاري، بَاب جَمْعِ الْقُرْآنِ، 6/183 الرقم: 4987 دار طوق النجاة. صحيح البخاري مع الهامش 2/746 الرقم:4796)

( بمصحف من تلك المصاحف التي نسخوا ) زاد البخاري وأمر بما سواه من القرآن في كل صحيفة أو مصحف أن يحرق  قال بن بطال في هذا الحديث جواز تحريق الكتب التي فيها اسم الله بالنار وأن ذلك إكرام لها وصون عن وطئها بالأقدام  وقد أخرج عبد الرزاق من طريق طاوس أنه كان يحرق الرسائل التي فيها البسملة إذا اجتمعت وكذا فعل عروة. (تحفة الأحوذي بشرح جامع الترمذي، باب ومن سورة التوبة 8/412 دار الكتب العلمية – بيروت)

(قوله: يدفن) أي يجعل في خرقة طاهرة ويدفن في محل غير ممتهن لا يوطأ. وفي الذخيرة وينبغي أن يلحد له ولا يشق له؛ لأنه يحتاج إلى إهالة التراب عليه، وفي ذلك نوع تحقير إلا إذا جعل فوقه سقف بحيث لا يصل التراب إليه فهو حسن أيضا اهـ. وأما غيره من الكتب فسيأتي في الحظر والإباحة أنه يمحى عنها اسم الله تعالى وملائكته ورسله ويحرق الباقي ولا بأس بأن تلقى في ماء جار كما هي أو تدفن وهو أحسن. اهـ.( رد المحتار على الدر المختار، سنن الغسل 1/177 دار الفكر-بيروت. 1/320-321 زكريا)

(فروع) من التعظيم أن لا يمد رجله إلى الكتاب وفي التجنيس المصحف إذا صار كهنا أي عتيقا وصار بحال لا يقرأ فيه وخاف أن يضيع يجعل في خرقة طاهرة ويدفن؛ لأن المسلم إذا مات يدفن فالمصحف إذا صار كذلك كان دفنه أفضل من وضعه موضعا يخاف أن تقع عليه النجاسة أو نحو ذلك. (البحر الرائق شرح كنز الدقائق، ما يمنعه الحيض 1/212 دار الكتاب الإسلامي)

كتاب النوازل 15/82


কুরআন মাজীদের নষ্ট হয়ে যাওয়া পৃষ্ঠাগুলো জ্বালিয়ে দেওয়ার বিধান।

প্রশ্ন: যদি কুরআন মাজীদ একেবারে বিনষ্ট হয়ে যায় এবং এতো পুরানো হয়ে যায় যে তা তিলাওতের যোগ্য না থাকে তাহলে এই ব্যাপারে শরীয়তের বিধান কি? এই কুরআন মাজীদকে জ্বালিয়ে দাফন করে দেওয়া উত্তম নাকি শরীয়তে ইসলামে তার অন্য কোনো বিধান আছে?

সমাধান: কুরআন মাজীদ বা তাঁর ঐ পৃষ্ঠাগুলো যা একেবারে বিনষ্ট হয়ে গিয়েছে, যা থেকে উপকার অর্জন করা সম্ভব না কুরআন বা পৃষ্ঠাগুলোকে একটি পবিত্র কাপড়ের মধ্যে রেখে মাটির মধ্যে দাফন করে দেওয়া উচিত কিন্তু যদি জমিন এত নরম হয় যে ভবিষ্যতে পৃষ্ঠাগুলো উপরে চলে আসার সম্ভাবনা রয়েছে বা জমিনে দাফন করার মত তেমন জায়গা না পাওয়া যায় তাহলে উত্তম ব্যবস্থা হলো, ভাল পবিত্র কোন জিনিসের মধ্যে রেখে সাবধানতার সহিত পৃষ্ঠাওগুলোকে অথবা কুরআন মাজীদ কে জ্বালিয়ে দিবে অতঃপর তাঁর ছাইগুলোকে মাটির মধ্যে দাফন করে দেবে অথবা প্রবাহিত নদী ও সাগরের মধ্যে ভেসে দেবেনষ্ট হয়ে যাওয়া কুরআন মাজীদের   পৃষ্ঠাগুলোতে অবমাননার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য এই পদ্ধতি অবলম্বন করাও উত্তমকেননা হযরত উসমান (রা.) যখন কুরআন মাজীদের নুস্‌খাগুলোকে একত্রিত করে লিপিবদ্ধ করলেন তখন অন্যান্য নুস্‌খাগুলোকে জ্বালিয়ে দেওয়ার দিলেন। সুতরাং জ্বালিয়ে দেওয়াটা যদি কুরআন মাজীদের অবমাননা হতো তাহলে হযরত উসমান (রা.) এটা করার নির্দেশ দিতেন না

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

وَقَالَ عُثْمَانُ لِلرَّهْطِ الْقُرَشِيِّينَ الثَّلَاثَةِ إِذَا اخْتَلَفْتُمْ أَنْتُمْ وَزَيْدُ بْنُ ثَابِتٍ فِي شَيْءٍ مِنْ الْقُرْآنِ فَاكْتُبُوهُ بِلِسَانِ قُرَيْشٍ فَإِنَّمَا نَزَلَ بِلِسَانِهِمْ فَفَعَلُوا حَتَّى إِذَا نَسَخُوا الصُّحُفَ فِي الْمَصَاحِفِ رَدَّ عُثْمَانُ الصُّحُفَ إِلَى حَفْصَةَ وَأَرْسَلَ إِلَى كُلِّ أُفُقٍ بِمُصْحَفٍ مِمَّا نَسَخُوا وَأَمَرَ بِمَا سِوَاهُ مِنْ الْقُرْآنِ فِي كُلِّ صَحِيفَةٍ أَوْ مُصْحَفٍ أَنْ يُحْرَقَ (صحيح البخاري، بَاب جَمْعِ الْقُرْآنِ، 6/183 الرقم: 4987 دار طوق النجاة. صحيح البخاري مع الهامش 2/746 الرقم:4796)

وأكثر الروايات صريح في التحريق فهو الذي وقع ويحتمل وقوع كل منهما بحسب ما رأى من كان بيده شيء من ذلك وقد جزم عياض بأنهم غسلوها بالماء ثم أحرقوها مبالغة في إذهابها قال بن بطال في هذا الحديث جواز تحريق الكتب التي فيها اسم الله بالنار وأن ذلك إكرام لها وصون عن وطئها بالأقدام وقد أخرج عبد الرزاق من طريق طاوس أنه كان يحرق الرسائل التي فيها البسملة إذا اجتمعت وكذا فعل عروة. (فتح الباري شرح صحيح البخاري، قوله باب جمع القرآن المراد بالجمع هنا جمع مخصوص وهو جمع متفرقة في صحف ثم جمع تلك الصحف في مصحف 9/21 دار المعرفة – بيروت)

عن ابن طاوس عن أبيه أنه كان إذا اجتمعت عنده الرسائل أمر بها فاحرقت. (المصنف-ابن أبي شيبة، في إحراق الكتب ونحوها 5/301 الرقم: 26301 مكتبة الرشد – الرياض)

عن الأسود بن هلال قال أتى عبد الله بصحيفة فيها حديث فأتى بماء فمحاها ثم غسلها ثم أمر بها فأحرقت. (المصنف-ابن أبي شيبة، في إحراق الكتب ونحوها 5/301 الرقم: 26304 مكتبة الرشد – الرياض)

(قوله: يدفن) أي يجعل في خرقة طاهرة ويدفن في محل غير ممتهن لا يوطأ. وفي الذخيرة وينبغي أن يلحد له ولا يشق له؛ لأنه يحتاج إلى إهالة التراب عليه، وفي ذلك نوع تحقير إلا إذا جعل فوقه سقف بحيث لا يصل التراب إليه فهو حسن أيضا اهـ. وأما غيره من الكتب فسيأتي في الحظر والإباحة أنه يمحى عنها اسم الله تعالى وملائكته ورسله ويحرق الباقي ولا بأس بأن تلقى في ماء جار كما هي أو تدفن وهو أحسن. اهـ.( رد المحتار على الدر المختار، سنن الغسل 1/177 دار الفكر-بيروت. 1/320-321 زكريا)

وفي السراجية: إذا صار المصحف خلقا ينبغي أن يلف في خرقة طاهرة، ويدفن في مكان طاهر أو يحرق. (الفتاوى التاتارخانية 18/69 الرقم: 28067 زكريا)

كتاب النوازل 15/84


নষ্ট হয়ে যাওয়া কুরআন মাজীদ মসজিদের আন্ডারগ্রাউন্ডে রাখা।

প্রশ্ন: মসজিদ নির্মাণের সময় গোরস্থানের সামান্য একটু জায়গা মসজিদের মধ্যে চলে আসেএবং মসজিদকে অনেক উঁচু করে তৈরি করা হয় ও নিচে আন্ডারগ্রাউন্ড ঘর নির্মাণ করা হয় সুতরাং উক্ত আন্ডারগ্রাউন্ড এর মধ্যে নষ্ট হয়ে যাওয়া কুরআন মাজীদ রেখে দিতে পারব কিনা?

সমাধান: যদি নষ্ট হয়ে যাওয়া কুরআন মাজীদ মসজিদের আন্ডারগ্রাউন্ডে রাখার দ্বারা কুরআন মাজীদের অবমাননা না হয় তাহলে কুরআন মাজীদ অথবা তার পৃষ্ঠাগুলোকে সেখানে রেখে দেওয়ায় শরীয়তে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

وإن شاء غسله بالماء أو وضعه في موضع طاهر لا تصل إليه يد محدث ولا غبار، ولا قذر تعظيما لكلام الله عز وجل اهـ. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الحظر والإباحة،  فرع يكره إعطاء سائل المسجد إلا إذا لم يتخط رقاب الناس 6/422 دار الفكر-بيروت. 6/22 كراجي. 9/605 زكريا)

كتاب النوازل 15/87


والله سبحانه وتعالى أعلم

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য