Subscribe Us

header ads

বন্ধক রাখা অলংকারের উপর যাকাতের বিধান।

বন্ধক রাখা অলংকারের উপর যাকাতের বিধান।

রো পড়ুন


প্রশ্ন: আমাদের এখানে কেউ কাউকে শরঈ ঋণ দিতে চায় না তবে আমাদের এখানে একটি মুসলিম ফান্ড রয়েছে যেখান থেকে সবাইকে ঋণ দেওয়া হয়কিন্তু এর জন্য শর্ত হলো তাদের নিকটে কিছু বন্ধক রাখতে হয় উদাহরণস্বরূপ আমার নিকটে ৫০ হাজার টাকার একটি অলংকার রয়েছে এখন যদি আমি এটাকে বন্ধক রাখি তাহলে তারা আমাকে ৪০ হাজার টাকা ঋণ দিবে সুতরাং জানার বিষয় হলো, আমরা যখন আমাদের সম্পদ থেকে যাকাতের মাল বের করবো তখন মুসলিম ফান্ডের মধ্যে যে অলংকার বন্ধক রাখা হয়েছে সেটাও হিসাব করতে হবে? নাকি উক্ত ঋণের টাকাকে হিসাবের মধ্যে গণ্য করতে হবে যেটা অলংকার বন্ধক রেখে আমরা ঋণ নিয়েছি?

সমাধান: যে অলংকার গুলোকে বন্ধক হিসাবে রাখা হয়েছ উক্ত অলংকারের যাকাত বন্ধকদাতা এবং বন্ধকগ্রহীতা কারো উপরই ওয়াজিব নয় কেননা বন্ধকগ্রহীতা তো ঐ সম্পদের মালিকই নয় আর বন্ধকদাতার উক্ত সম্পদের উপর পরিপূর্ণ হস্তক্ষেপ নেইআর যে সম্পদের উপর মালিকের পরিপূর্ণ হস্তক্ষেপ না থাকে অর্থাৎ তা ইচ্ছামত খরচ করা অথবা ব্যবহার করার ক্ষমতা না থাকে তাঁর উপর যাকাত ওয়াজিব হয়না। তবে বন্ধকদাতা যে ঋণ গ্রহণ করেছে তা তাঁর মালিকানায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কারণে তাকে তার সম্পদের সঙ্গে মিলিয়ে হিসাব করে যাকাত দিতে হবে। 

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

عن نافع عن بن عمر قال زكوا زكاة أموالكم حولا إلى حول وما كان من دين ثقة فزكه وإن كان من دين مظنون فلا زكاة فيه حتى يقضيه صاحبه. (مصنف ابن أبي شيبة 2/389 الرقم: 10251 مكتبة الرشد – الرياض)

(قوله: ولا في مرهون) أي لا على المرتهن لعدم ملك الرقبة ولا على الراهن لعدم اليد. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الزكاة  2/263 دار الفكر-بيروت. 3/180 زكريا)

ومن موانع الوجوب الرهن إذا كان في يد المرتهن لعدم ملك اليد. (البحر الرائق شرح كنز الدقائق، شروط وجوب الزكاة 2/218  دار الكتاب الإسلامي.2/355 رشيدية. 2/203 كراجي)

وكذا لو رهنها بألف وله مائة ألف فحال الحول على الرهن في يد المرتهن يزكي الراهن ما عنده من المال إلا ألف الدين. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الزكاة  2/263 دار الفكر-بيروت. 3/180 زكريا)

كتاب النوازل 6/440


মুসলিম ফান্ডে রেখে দেওয়া অলংকারের উপর যাকাতের বিধান।

প্রশ্ন: আমাদের এলাকায় কিছু লোক ঋণ নেওয়ার জন্য অনেক সময় তাদের কিছু অলংকার মুসলিম ফান্ডে বন্ধক রেখে তাঁরা ঋণ গ্রহণ করে। যখন তাঁরা ঋণ পরিশোধ করে দেয় তখন তাঁর বন্ধক রাখা অলঙ্কারগুলো ফেরত দেওয়া হয় কিন্তু মুসলিম ফান্ডে যে কাগজ, কলম, অফিসের ভাড়া, ইত্যাদি খরচাদি রয়েছে তা বন্ধকদাতাদের কাছ থেকেই নেওয়া হয় তবে অনেক সময় কিছু সম্পদশালী ব্যক্তিও তাদের ব্যক্তিগত স্বর্ণ, রূপা, ইত্যাদির অলঙ্কারগুলো সংরক্ষণের জন্য উক্ত ফান্ডে রেখে দেয়এবং তা রাখার ক্ষেত্রে যে খরচ আসে তা তাঁরা আদায় করে দেয়। এখন জানার বিষয় হলো, আমাদের এলাকার অনেক লোক যে মুসলিম ফান্ডে অলংকার ইত্যাদি বন্ধক হিসাবে রেখে দেয় তার উপর যাকাত ওয়াজিব হবে কিনা? এবং ধনী ব্যক্তিরা যে অলংকার, স্বর্ণ-রুপা ইত্যাদি রেখে দেয় তার উপর যাকাত ওয়াজিব হবে? নাকি সেটাও বন্ধকী বস্তুর অন্তর্ভুক্ত হবে?

সমাধান: যদি কোন ব্যক্তি নিজের মালিকানা থেকে অলংকার ইত্যাদি বন্ধক রেখে দেয় তাহলে তার উপর যাকাত ওয়াজিব হবে না আর যদি সে তাঁর স্ত্রীর মালিকানা থেকে অলংকার ইত্যাদি বন্ধক হিসাবে রেখে দেয় তাহলে উক্ত অলংকারের যাকাত দিতে হবে। কেননা স্বামী তার স্ত্রীর নিকট থেকে যে অলংকার ইত্যাদি নিয়ে বন্ধক রেখেছে তা স্ত্রীর পক্ষ থেকে স্বামীকে ঋণ হিসাবে দেওয়া হয়েছে। আর উক্ত ঋণটি  বা الدين القويশক্তিশালী ঋণ হিসেবে বিবেচিত হবে এইজন্য স্ত্রীকে অবশ্যই উক্ত সম্পদের যাকাত দিতে হবে। সুতরাং যদি সময়মত যাকাত আদায় করতে না পারে তাহলে অলংকার ইত্যাদি হস্তগত হয়ে যাওয়ার পরে বিগত বছর গুলোর যাকাত আদায় করতে হবে আর সম্পদশালী ব্যক্তিরা হেফাজতের জন্য যে অলংকার ইত্যাদি মুসলিম ফান্ডে রেখে দেয় তা আমানতের অন্তর্ভুক্ত হবে তাই উক্ত সমস্ত সম্পদের হিসাব করে যাকাতের অংশ বের করে যাকাত দিতে হবে

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

عن عبد الله بن عباس وعبد الله بن عمر قالا من أسلف مالا فعليه زكاته في كل عام إذا كان في ثقة. (سنن البيهقي الكبرى، باب زكاة الدين إذا كان على ملي موفى 4/149 الرقم: 7409 مكتبة دار الباز - مكة المكرمة)

عن نافع عن بن عمر قال زكوا زكاة أموالكم حولا إلى حول وما كان من دين ثقة فزكه وإن كان من دين مظنون فلا زكاة فيه حتى يقضيه صاحبه. (مصنف ابن أبي شيبة 2/389 الرقم: 10251 مكتبة الرشد – الرياض)

(قوله: ولا في مرهون) أي لا على المرتهن لعدم ملك الرقبة ولا على الراهن لعدم اليد. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الزكاة  2/263 دار الفكر-بيروت. 3/180 زكريا)

ومن موانع الوجوب الرهن إذا كان في يد المرتهن لعدم ملك اليد. (البحر الرائق شرح كنز الدقائق، شروط وجوب الزكاة 2/218  دار الكتاب الإسلامي.2/355 رشيدية. 2/203 كراجي)

قسم أبو حنيفة الدين على ثلاثة أقسام: قوي، وهو بدل القرض، ومال التجارة، ومتوسط، وهو بدل ما ليس للتجارة.... ففي القوي تجب الزكاة إذا حال الحول، ويتراخى القضاء إلى أن يقبض أربعين درهما ففيها درهم، وكذا فيما زاد بحسابه، وفي المتوسط لا تجب ما لم يقبض نصابا، ويعتبر لما مضى من الحول في صحيح الرواية. (البحر الرائق شرح كنز الدقائق، شروط وجوب الزكاة 2/223 دار الكتاب الإسلامي. 2/207 كوئطه. وكذا في درر الحكام شرح غرر الأحكام 1/173 دار إحياء الكتب العربية)

كتاب النوازل 6/441


৫০ হাজার টাকা পরিমাণের অলংকার বন্ধক রেখে ১০ হাজার টাকা ঋণ নেওয়া ব্যক্তির উপর যাকাতের বিধান।

প্রশ্ন: যায়েদের নিকটে ৫০ হাজার টাকা পরিমাণের অলংকার রয়েছে তার টাকার প্রয়োজন হওয়ার কারণে সে ঐ ৫০ হাজার টাকার অলংকার বন্ধক রেখে ১০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছে। এখন ব্যক্তির উপর যাকাতের হুকুম কি? ৫০ হাজার টাকা পরিমাণ যে অলংকার আছে তা থেকে যে ১০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছে তা বাদ দিয়ে বাকি ৪০ হাজার টাকার যাকাত দিতে হবে? নাকি পূর্ণ ৫০ হাজার টাকার অলংকারই বন্ধকী বস্তুর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হবে এবং তার যাকাত দিতে হবে না?
 
সমাধান: ফিক্বহের কিতাবাদির বিভিন্ন মাসআলা-মাসায়েল দ্বারা এটাই জানা যায় যে, ঋণটি চাই বন্ধকী বস্তুর চাইতে কম হোক অথবা বেশি হোক কোন অবস্থাতেই যাকাত ওয়াজিব হবে না কিন্তু এখানে একটি বিষয় লক্ষণীয় যে, স্বর্ণ এবং রুপা দুটি হল সৃষ্টিগত সম্পদ যা বন্ধক রাখা অবস্থায় তা বন্ধকী বস্তুর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়। অপর দিকে তা ঋণ এবং আমানতের অন্তর্ভুক্তও হয় এইজন্য উক্ত মাসআলার ক্ষেত্রে সাবধানতা এটাই হবে, যে পরিমাণ টাকা ঋণ নিয়েছে ঐ পরিমাণ অংশ বন্ধকী বস্তু হিসাবে গণ্য হবে এবং উক্ত অলংকার থেকে সে পরিমাণের যাকাত রহিত হয়ে যাবে এবং অতিরিক্ত অংশকে ঋণ অথবা আমানতের অন্তর্ভুক্ত ধরে তাঁর যাকাত দিয়ে দেওয়াই উত্তম হবে। 

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

عن عبد الله بن عباس وعبد الله بن عمر قالا من أسلف مالا فعليه زكاته في كل عام إذا كان في ثقة. (سنن البيهقي الكبرى، باب زكاة الدين إذا كان على ملي موفى 4/149 الرقم: 7409 مكتبة دار الباز - مكة المكرمة)

عن نافع عن بن عمر قال زكوا زكاة أموالكم حولا إلى حول وما كان من دين ثقة فزكه وإن كان من دين مظنون فلا زكاة فيه حتى يقضيه صاحبه. (مصنف ابن أبي شيبة 2/389 الرقم: 10251 مكتبة الرشد – الرياض)

(قوله: ولا في مرهون) أي لا على المرتهن لعدم ملك الرقبة ولا على الراهن لعدم اليد. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الزكاة  2/263 دار الفكر-بيروت. 3/180 زكريا)

ومن موانع الوجوب الرهن إذا كان في يد المرتهن لعدم ملك اليد. (البحر الرائق شرح كنز الدقائق، شروط وجوب الزكاة 2/218  دار الكتاب الإسلامي.2/355 رشيدية. 2/203 كراجي)

وكذا لو رهنها بألف وله مائة ألف فحال الحول على الرهن في يد المرتهن يزكي الراهن ما عنده من المال إلا ألف الدين. (رد المحتار على الدر المختار، كتاب الزكاة  2/263 دار الفكر-بيروت. 3/180 زكريا)

كتاب النوازل 6/443



والله سبحانه وتعالى أعلم

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য