Subscribe Us

header ads

কুরবানী কি পরিবারের সবার উপর ওয়াজিব? পিতা ও সন্তানেরা একসাথে ব্যবসা করলে কুরবানী শুধু পিতা দিবে নাকি সন্তানরাও?

কুরবানী প্রত্যেক পরিবারের সবার উপর ওয়াজিব যদি তাঁরা নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হয়।

প্রশ্ন: জাহিদ বলে কুরবানী প্রত্যেক পরিবারের কর্তার উপর ওয়াজিব। এজন্য সে প্রত্যেক বছর নিজের নামে কুরবানি করবে। পক্ষান্তরে মাহমূদ বলে কুরবানী পরিবারের প্রত্যেকের উপর ওয়াজিব যদি তাঁরা নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হয় । এক্ষেত্রে শরীয়তের বিধান কি ?

সমাধান: কুরবানী শুধু পরিবারের কর্তার উপরই ওয়াজিব নয় বরং প্রত্যেক সদস্যের উপর পৃথক পৃথকভাবে ওয়াজিব যদি তাঁরা সামর্থবান ও নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হয়।

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

الأضحية واجبة على كل حر مسلم مقيم موسر في يوم الأضحى عن نفسه. (الهداية 4/443)

(وأما) (شرائط الوجوب) : منها اليسار وهو ما يتعلق به وجوب صدقة الفطر دون ما يتعلق به وجوب الزكاة،.....والموسر في ظاهر الرواية من له مائتا درهم أو عشرون دينارا أو شيء يبلغ ذلك سوى مسكنه ومتاع مسكنه ومركوبه وخادمه في حاجته التي لا يستغني عنها، (الفتاوى الهندية 5/292 دار الفكر)

كتاب النوازل 14/490


পিতা ও সন্তানেরা একসাথে ব্যবসা করে এমতবস্থায় কুরবানী শুধু পিতা দিবে নাকি সন্তানদেরও দিতে হবে?
  
প্রশ্ন: একজন পিতার চারজন ছেলে। পিতা ও চার ছেলে মিলে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে। এবং বাড়িতেও তাঁরা একসাথে থাকে ও একসাথেই খাওয়া দাওয়া করে। পিতা সন্তানদেরকে আলাদা করে দেয়নি। তবে পিতা যদি সন্তানদেরকে তাদের অংশ দিয়ে দেয় তাহলে তাঁরা সবাই কুরবানীর নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হয়ে যাবে। সুতরাং এমতবস্থায় শুধু পিতার উপর কুরবানী ওয়াজিব হবে নাকি সন্তানদের উপরও কুরবানী ওয়াজিব হবে?

সমাধান: পিতা ও সন্তানেরা যদি একসাথে ব্যবসা করে এবং উক্ত ব্যবসার মূল মালিক যদি পিতা হয় আর সন্তানেরা তাঁর সহায়ক হয়, এবং পিতার ব্যবসায় অংশীদারিত্ব ব্যতীত তাদের মালিকানায় এপরিমাণ সম্পদও না থাকে যে পরিমাণ সম্পদ হলে যাকাত ফরজ হয় তাহলে শুধুমাত্র পিতার উপর কুরবানী ওয়াজিব হবে। সন্তানদের পৃথকভাবে কুরবানী দিতে হবে না। আর যদি পিতার ব্যবসায় অংশীদারিত্ব ব্যতীতও কোন সন্তানের কাছে আলাদাভাবে কুরবানীর নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকে তাহলে তাঁর উপর কুরবানী ওয়াজিব হবে। এবং তাকে পৃথকভাবে আরেকটি কুরবানী দিতে হবে।

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

عن عائشة قالت قال رسول الله صلى الله عليه و سلم إن أطيب ما أكلتم من كسبكم وإن أولادكم من كسبكم(سنن الترمذي، باب ما جاء أن الوالد يأخذ من مال ولده 3/639 الرقم: 1358 دار إحياء التراث العربيبيروت. سنن ابن ماجه، باب ماللرجل من مال ولده 2/768 الرقم: 2290 دار الفكر - بيروت)

عن عائشة قالت : قال النبي صلى الله عليه و سلم : " إن أطيب ما أكلتم من كسبكم وإن أولادكم من كسبكم " . رواه الترمذي والنسائي وابن ماجه . وفي رواية أبي داود والدارمي : " إن أطيب ما أكل الرجل من كسبه وإن ولده من كسبه "(مشكاة المصابيح،كتاب البيوع 2/126 الرقم: 2770 المكتب الإسلاميبيروت)

كتاب النوازل 14/493

   
 من وجد سعة فلم يضح إلخ..(যার সাধ্য আছে কুরবানী দেওয়ার) উক্ত হাদীসের মধ্যে سعة  (সাধ্য থাকা)  দ্বারা কতটুকু সম্পদ থাকা উদ্দেশ্য?

প্রশ্ন: من وجد سعة فلم يضح إلخ.. উক্ত হাদীসের ভিত্তিতে কতিপয় লোক বলে থাকেন কুরবানী দেওয়ার জন্য নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হওয়া শর্ত নয় বরং কুরবানীর পশু কিনতে পারে এপরিমান অর্থ (চার/পাঁচ হাজার টাকা)  থাকলেই কুরবানী করা ওয়াজিব। সুতরাং তাদের কথা কতটুকু গ্রহণযোগ্য ? 
            
সমাধান: মুহাদ্দিসগণ ও ফকিহ্‌গণ উক্ত হাদীসের ব্যাখ্যায় বলেন যে, সাধ্য থাকার অর্থ হল, নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হওয়াআর এই ব্যাখ্যাটিই শরীয়তের চাহিদানুযায়ী হয়েছে। কেননা শরীয়ত ধনী হওয়ার নির্ধারিত একটি পরিমাণ ধার্য্য করে দিয়েছে। আর তা হলো, নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হওয়া এজন্য যারা মুহাদ্দিসগণ ও ফকিহ্‌গণদের ব্যাখ্যা না মেনে চার/পাচঁ হাজার টাকা বা একটি পশুর মুল্যকেই  سعة দ্বারা ব্যাখ্যা করে তাদের কথা সঠিক নয়।

প্রদত্ত সমাধানের দলীল সমূহ

ومنها الغنى لما روي عن رسول الله صلى الله عليه وسلم أنه قال : من وجد سعة فليضح، شرط عليه الصلاة والسلام السعة وهي الغنى ولأنا أوجبناها بمطلق المال ومن الجائز أن يستغرق الواجب جميع ماله فيؤدي إلى الحرج فلا بد من اعتبار الغنى وهو أن يكون في ملكه مائتا درهم أو عشرون دينارا أو شيء تبلغ قيمته ذلك سوى مسكنه وما يتأثث به وكسوته وخادمه وفرسه وسلاحه وما لا يستغني عنه وهو نصاب صدقة الفطر ، وقد ذكرناه وما يتصل به من المسائل في صدقة الفطر . (بدائع الصنائع في ترتيب الشرائع، كتاب الأضحية، فصل في شرائط وجوب في الأضحية، 10/254 . 4/196 زكريا)

واليسار لقوله عليه الصلاة والسلام " لا صدقة إلا عن ظهر غنى " وهو حجة على الشافعي رحمه الله في قوله تجب على من يملك زيادة عن قوت يومه لنفسه وعياله وقدر اليسار بالنصاب لتقدير الغني في الشرع به فاضلا عما ذكر من الأشياء لأنها مستحقة بالحاجة الأصلية والمستحق بالحاجة الأصلية كالمعدوم ولا يشترط فيه النمو ويتعلق بهذا النصاب حرمان الصدقة ووجوب الأضحية والفطرة.( الهداية في شرح بداية المبتدي، باب صدقة الفطر 1/113 دار احياء التراث العربي - بيروتلبنان) (البناية شرح الهداية، 3/484، دار الكتب العلمية - بيروت، لبنان) (نصب الراية مع الهداية 2/429 مكتبة دار الإيمان)

ويتعلق بهذا النصاب وجوب الأضحية، ووجوب نفقة الأقارب (الفتاوى الهندية، الباب الثامن في صدقة الفطر1/191 دار الفكر و زكريا)

كتاب النوازل 14/491


والله سبحانه وتعالى أعلم

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য